onlineonline-business

ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারি

আসসালামু আলাইকুম বন্ধুরা। আশা করছি আপনারা সকলে অনেক ভালো আছেন। আল্লাহর অশেষ রহমতে আমি অনেক ভালো আছি। সবাইকে পবিত্র রমজান মাসের শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। আশা করছি আপনারা পবিত্র রমজান মাসের 30 টা রোযা রাখবেন। আজকে মূলত যে বিষয়ে পোস্ট নিয়ে আসা সেটা হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং। ফ্রীলান্সিং কথাটা শোনা মাত্রই অনেকের মনে অনেক জল্পনা-কল্পনা কাজ করে। কারণ বর্তমান সময়ে এটি একটি অনেক জনপ্রিয় বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আমাদের দেশে অধিকাংশ লোক বেকার। তাদের আয় করা বা নিজের পায়ে স্বাবলম্বী হয়ে দাঁড়ানো, বিষয়টাকে অনেকটা সহজ করে দিয়েছে আমাদের এই ফ্রিল্যান্সিং। বর্তমান সময়ে এই ফ্রিল্যান্সিং এতটাই জনপ্রিয় হয়েছে যে অনেক উদ্যোক্তা অনেক উদ্যোগ গ্রহণ করছেন এই ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে। আজকে আমরা এ ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে বিস্তারিত কথা বলব।

ফ্রিল্যান্সিং কি?

যদি খুব সহজ এবং সাবলীল ভাষায় আমি বলতে চাই ফ্রিল্যান্সিং কি তাহলে ফ্রিল্যান্সিং হচ্ছে মুক্ত পেশা। একটু বুঝিয়ে বলি, ফ্রীলান্সিং এমন একটি মুক্ত পেশা যেটি আপনারা চাইলে খুব সহজেই ঘরে বসেই করতে পারবেন কোন প্রকার অফিসের প্রয়োজন নেই। এবং স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারবেন কোন রকম সময়ের ধরাবাধা নিয়ম নেই। তার কারণে বর্তমান সময়ে ফ্রিল্যান্সিং এতটাই জনপ্রিয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এছাড়াও পৃথিবীতে প্রচুর পরিমাণে কাজের সংখ্যা বাড়ছে সেটা হচ্ছে ইন্টারনেট ভিত্তিক কাজ। কিন্তু এই ইন্টারনেট ভিত্তিক কাজ করার জন্য সঠিক কর্ম দক্ষতা সম্পন্ন মানুষ প্রয়োজন। এক্ষেত্রে ফ্রিল্যান্সিং এর ভূমিকা অপরিহার্য।

কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারি?

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নটা আমি মনে করছি একটি প্রশ্ন। কারণ অনেকে জিজ্ঞেস করে ভাইয়া কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবো আমি ফ্রিল্যান্সিং করতে চাই। আসলে দেখুন ফ্রীলান্সিং মানেটা আপনারা জানেন অনলাইনের মাধ্যমে আপনি ঘরে বসে অন্যের কাজ যদি করে দেন এটাই ফ্রীলান্সিং। এতে করে আপনাকে দেশের বাহিরের লোকের সাথে কাজ করতে হবে এ জিনিসটা নয়। আপনি চাইলে আমাদের দেশের লোকের সাথে কাজ করে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন এবং সেটা অবশ্যই ফ্রিল্যান্সিং বলে গণ্য করা হবে।

আপনারা চাইলে আপনার হাতের মোবাইল ফোন দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারেন চাইলে আপনার কম্পিউটার ব্যবহার করতে পারেন। আমি আজকে সব বিষয়ে আপনাদের বলব। গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো বলব যেগুলো বর্তমান সময়ে খুব প্রচলিত ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য। এবং যাদের কাছে কম্পিউটার নেই তারা কিভাবে শুরু করতে পারে এই বিষয়টা বলবো।

  • ওয়েব ডেভলপমেন্ট:

বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং আলোড়ন সৃষ্টিকারী জিনিসটা হল ওয়েব ডেভলপমেন্ট। ওয়েব ডেভলপমেন্ট করতে হলে অবশ্যই আপনাকে কম্পিউটার বা ল্যাপটপের প্রয়োজন হবে। অনেকে বলতে পারেন ভাইয়া web-development করতে হলে কম্পিউটার প্রয়োজন হয় না আমি তো মোবাইল দিয়ে করতে পারি। হ্যাঁ কথাটা ঠিক আপনি মোবাইল ফোন দিয়ে করতে পারবেন কিন্তু অনেক জটিল কাজ রয়েছে যেগুলো আপনাদের মোবাইল ফোন দ্বারা করা সম্ভব নয়।

কিন্তু আপনারা ওয়েব ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট শেখার জন্য যে যে জিনিস গুলো বর্তমানে শেখা দরকার সেগুলো আমি বলে দিচ্ছি আপনারা চাইলে সেগুলো খুব সহজে আপনার হাতের এন্ড্রয়েড ফোন দিয়ে শিখতে পারবেন এবং আপনারা যদি চান কম্পিউটার দেশেতে তাহলে তো আরো ভালো ।

 

  • এইচটিএমএল
  • সিএসএস
  • জাভাস্ক্রিপ্ট
  • যেকিউরি
  • পিএইচপি
  • মাইএসকিউএল
  • ওয়াডপ্রেস

দেখুন আপনারা শুধুমাত্র এগুলো সম্পর্কে ধারণা নিতে পারেন এবং ভিডিও দেখতে পারেন এছাড়াও আপনারা চাইলে এইচটিএমএল সিএসএস এগুলো প্র্যাকটিস করতে পারেন। এবং চাইলে এন্ড্রয়েড ফোনে এগুলো প্র্যাকটিস করা যায় কোন সমস্যা হয় না। কিন্তু অন্যান্য বিষয়গুলো অর্থাৎ আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস শিখতে চান তাহলে অবশ্যই সে ক্ষেত্রে আমি আপনাদের বলব কম্পিউটার ব্যবহার করার জন্য।

  • অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং:

বর্তমান সময়ে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য আপনাকে বড় কোন সফটওয়্যার এর প্রয়োজন হয় না। আপনাকে কোন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ সম্পর্কে জানতে হবে না। আপনার যদি মার্কেটিং করার দক্ষতা থাকে তাহলে খুব সহজেই আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ে অনেক সফলতা অর্জন করতে পারবেন।

এর জন্য আপনি চাইলে আপনার হাতের এন্ড্রয়েড ফোন খুব সহজে ব্যবহার করতে পারেন। এবং অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং আপনি যদি চান ইউটিউব থেকে শিখতে পারেন এছাড়াও পরবর্তীতে আমি এফিলিয়েট মার্কেটিং নিয়ে পোস্ট আনবো। আপনারা এফিলিয়েট মার্কেটিং আমাদের দেশের ই-কমার্স ওয়েবসাইট এর সাথে করতে পারেন। আপনারা জানেন daraz.com বর্তমানে আমাদের দেশের অনেক জনপ্রিয় একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট।

সুতরাং আপনি চাইলে daraz.com এর সাথে অ্যাফিলিয়েট পার্টনারশিপ নিয়ে কাজ করতে পারেন। প্রোডাক্ট সেল করবেন এবং প্রতি ছেলে অবশ্যই কমিশন পাবেন এবং সেটা আপনাকে সরাসরি বিকাশে প্রদান করা হবে। ইন্টারন্যাশনাল কোন সাইটে কাজ করলে অবশ্যই আপনাকে সে ক্ষেত্রে ইন্টার্নেশনাল ট্রানজেকশন এর জন্য অন্যান্য কার্ড ব্যবহার করা প্রয়োজন হতে পারে।

এছাড়াও ভিসা কার্ড এবং মাস্টারদের সম্পর্কে আপনারা যারা জানেননা পোস্ট অলরেডি আছে আপনারা চাইলে দেখে নিতে পারেন।

এক্ষেত্রে জনপ্রিয় যে বিষয়টি সেটি হচ্ছে ফেসবুক মার্কেটিং। বাংলাদেশে অনেক লোক বর্তমানে স্বাবলম্বী হচ্ছে এই একটিমাত্র মার্কেটিং এর সহায়তায়। সুতরাং আপনি চাইলে ফেসবুক মার্কেটিং খুব সহজেই শুরু করতে পারেন।

 

  • ইউটিউব ভিডিও তৈরি করা:

বর্তমান সময়ের যারা ইউটিউবিং করেন এবং গুগল অ্যাডসেন্স মনিটাইজ পান। আমি মনে করি তারা সোনার হরিণ হাতে পেয়ে যান। আসলে কথাটা শুনতে অন্যরকম লাগলেও এটাই সত্যি। ইউটিউবিং বর্তমান সময়ে অনেক জনপ্রিয় এবং বাংলাদেশে প্রায় প্রত্যেক মানুষ ইউটিউবে ভিডিও দেখে। সে ক্ষেত্রে আপনি যদি বাংলা কন্টাক্ট ক্রিয়েটর হন তাহলে তো কোন কথাই নেই।

এবং আপনি চাইলে ইউটিউব ভিডিও আপনার হাতের এন্ড্রয়েড ফোন দিয়ে তৈরি করতে পারবেন চাইলে কম্পিউটার দিয়ে তৈরি করতে পারবেন। এখন এই বিষয়টা সম্পূর্ণ নির্ভর করছে আপনার উপর আপনি কি দিয়ে তৈরি করবেন।

ধরুন আপনি অনলাইন থেকে ইনকাম সম্পর্কিত ভিডিও তৈরি করেন তাহলে আপনি চাইলে অ্যান্ড্রয়েড ফোন ব্যবহার করতে পারেন আপনাকে আর অন্য কোন কিছু ব্যবহার করতে হবে না। এখন ধরুন আপনি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ শেখান প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ নিয়ে কাজ করেন সে ক্ষেত্রে আমি বলব আপনাকে অবশ্যই কম্পিউটার নেওয়ার জন্য।

এছাড়াও বর্তমান সময়ে গেমিং জিনিসটা অনেকটা প্রফেশনাল হয়ে গিয়েছে। গেমিং করে বর্তমানে অনেক টাকা উপার্জন করছে বাংলাদেশে অনেক যুবক। এবং তারা অ্যান্ড্রয়েড ফোনের মাধ্যমে গেম খেলে অনেক টাকা উপার্জন করছে এছাড়া অনেকে কম্পিউটার ব্যবহার করছে গেম খেলার জন্য।

আমরা দুইটা বিষয় শুরু করতে পারেন। বর্তমান সময়ে কোন জিনিস গুলো সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ইউটিউব ভিডিও তৈরি করার ক্ষেত্রে আমি সেগুলো বলে দিচ্ছি।

 

  • অনলাইন ইনকাম ভিডিও বানানো
  • ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শেখানো
  • ফ্রিল্যান্সিং শেখানো
  • গ্রাফিক্স ডিজাইনিং
  • গেমিং ভিডিও তৈরি করা
  • ফানি ভিডিও তৈরি করা
  • রান্না সম্পর্কিত ভিডিও বানানো
  • ভ্রমণ ভিডিও তৈরি করা

এরকম আরো অনেক বিষয় রয়েছে যেগুলোর ওপরে আপনারা ভিডিও তৈরি করে বর্তমান সময়ে অনেক ভালো জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পারবেন। এর মধ্যে বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় যে বিষয়টি সেটি হচ্ছে ভ্রমণ ভিডিও তৈরি করা। আপনার যদি ঘুরতে ভালো লাগে বা আপনি যদি প্রায় মাঝে মাঝে বন্ধু-বান্ধবের সাথে ঘুরতে যান। সে ক্ষেত্রে আমি বলব আপনারা যখনই ঘুরতে যান তখন আপনার হাতের অ্যান্ড্রয়েড ফোনটা দিয়ে সেই স্থানের ভিডিও তৈরি করুন।

এবং সেটা আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেলে আপনার দর্শকদের দেখাবেন যার মাধ্যমে আপনি ইনকাম করতে পারবেন এবং আপনার দর্শকরা উপকৃত হবে সেই জায়গা সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবে।

আজকে এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনাদের মাঝে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ফ্রিল্যান্সিং করার উপায় সম্পর্কে আলোচনা করলাম ফ্রীলান্সিং কি এই বিষয়টি বোঝানোর চেষ্টা করেছি আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। আপনার যে কোন একটি পথ বেছে নেবেন এবং সেই পথে অগ্রসর হবেন যদি কোন সমস্যা হয় অবশ্যই কমেন্ট বক্সে বলবেন আমি আপনাদের সাহায্য করার চেষ্টা করব। ভালো থাকবেন সকলে আসলামু আলাইকুম।

এমনই আরও কিছু বিষয় জানতে চাইলে এই সাইটে ভিজিট করতে পারেনঃ Pro Creative Tips

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button