পেরুতে বিয়ের আগেই ফুলশয্যা হয়

দক্ষিণ আমেরিকার পশ্চিম দিকে অবস্থিত ছোট্ট একটি দেশ হলো পেরু ।পেরুকে দেশটিকে সবথেকে সুন্দর দেশগুলির মধ্যে একটি মনে করা হয় । সুন্দর বিচ,সবুজে ভরা জঙ্গল আর শান্ত বাতাবরণের জন্য পেরু পর্যটকদের নিজের প্রতি আকর্ষিত করে । প্রাকৃতিক দিক থেকেও পেরু রহস্যে ভরা একটি দেশ । আর পেরুর কিছু জিনিস এমন দেখতে হয় যা পৃথিবীর সমস্ত দেশের মানুষকে হতবম্ভ করে দেয় আর পেরুর একটা বড় অংশ আমাজন জঙ্গলে ঘেরা । আর এভাবেই এই দেশ ব্রাজিলের পর দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে । পেরু পৃথিবীর একমাত্র দেশ যেখানে ৬৫০-টি পাখিকে একসঙ্গে উঁড়তে দেখা গেছে যেটি একটি বিশ্বরেকর্ডে র দরজা নিয়েছে কিন্তু সাধারণভাবে পেরুতে একসাথে ৩০০-র থেকে বেশি পাখি উড়তে দেখা যায় ।

পেরুর মোট জনসংখ্যা প্রায় তিন কোটি দশ লক্ষ এবং এখানকার মোট জনসংখ্যার প্রায় এক তৃতীয়াংশ এখানকার রাজধানী এবং সবথেকে বড় শহর লিমাতে বসবাস করেন । পেরুর মরুস্থলে বালি দিয়ে তৈরি একটি বালিয়াড়ি আছে যেটি প্রায় এগারোশো মিটার উঁচু আর এটি পেরুকে ছেড়ে পৃথিবীর অন্য কোনো দেশে নেই । পেরুর মরুস্থলে অনেক রহস্যময় চিত্র দেখা যায় । যদি এগুলিকে উপর থেকে দেখা যায় তাহলে প্রায় সত্তর রকমের জীবজন্তুর চিত্র দেখতে পাওয়া যায় । কিন্তু আজ পর্যন্ত কেউ জানতে পারেনি যে এই বিশাল চিএগুলি কারা তৈরি করেছে এবং তাদের কি উদ্দেশ্য ছিল যেটা আজকের বিজ্ঞানের কাছে একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে ।

পেরুর লোকেরা নূতন বছরে নিজের বন্ধুদের এবং আত্মীয়স্বজনদের গিফট হিসাবে হলুদ রঙের Underpant দিয়ে থাকে । পেরুতে অনেক রকমের খনিজ পদার্থ পাওয়া যায় পেরু পৃথিবীতে কপার উৎপাদনে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে আর সোনা উৎপাদনে ষষ্ঠ স্থান যার কারনে পেরুর রাজস্ব বা ট্যাক্স-এর একটা বড় অংশ সোনা দিয়ে মেটানো হয় ।

পেরুর মোট জনসংখ্যার প্রায় ৮০ শতাংশ মানুষ শহরে বাস করেন । আর পেরুর বেশিরভাগ লোক স্প্যানিশ ভাষায় কথা বলেন । পেরুতে বিয়ের আগে মেয়েকে নিজের শশুরের সাথে এবং ছেলেকে নিজের শ্বাশুড়ীর সাথে কিছু দিন কাটাতে হয় । এছাড়াও পেরুতে বিয়ের আগে ট্রাইল ম্যারেজের দ্বারা ছেলে আর মেয়েকে একসাথে রাখা হয় এবং তারপর ছেলে আর মেয়ে একজন দ্বিতীয় জনকে ছেড়ে চলে যেতে পারে আর এর ফলে জন্ম নেওয়া বাচ্চা এখানকার একটি কমিউনিটিতে জমা দেওয়া হয় ।

পৃথিবীতে জাপানের পর ডলফিনের মাংস পেরুতেই খাওয়া হয় । পেরুতে বিভিন্ন রকমের ভুট্টার চাষ হয়ে থাকে যার মধ্যে কালো,বেগুনি,সাদা,হলুদ বিভিন্ন রঙের ভুট্টা দেখতে পাবেন । পেরুর সরকার ১৯৭৩ সালে কয়েদিদের জন্য চিলিশশ ব্যান্ড করে দেন কারণ পেরুর সরকার মনে করেন যে চিলিসস কয়েদিদের যৌন উত্তেজনাকে বাড়িয়ে দেয় । পেরুর Currency নিউভো সোল্ড । ২০১৩-তে যুক্তরাষ্ট্র পেরুকে পৃথিবীতে সবথেকে বড় কোকিং-র উৎপাদক ঘোষিত করে । পুরো আমেরিকা মহাদেশের সবথেকে বেশি তান্ত্রিক পেরুতেই দেখা যায় ।

১৯৪৬ সালে পেরু আর আর্জেন্টিনার মধ্যে চলা ফুটবল ম্যাচে রেফারির দেওয়া একটি সিদ্ধান্ত দাঙ্গার কারণ হয়ে ওঠে । যাতে ৩০০-র থেকে বেশি লোক মারা যান এবং ৫০০-র থেকে বেশি লোক জখম হন । পেরু পৃথিবীর অষ্টম সবথেকে বড় কফি উৎপাদক । প্রাচীন পেরুতে Currency রূপে ভুট্টা ব্যবহার করা হতো ।পেরুর রাজধানী লিমাতে ১০ ফুট উঁচু একটি দেওয়াল আছে যেটি সব থেকে গরিব এলাকাকে সবথেকে ধনী শহর থেকে আলাদা করে । পেরুর কোন কথাটা আপনার সব থেকে ভাল লাগল আর কোন কথাটা খারাপ তা অবশ্যই কমেন্ট করে বলবেন ।

রহস্যময় পৃথিবীর রহস্য জানতে আমাদের সাথে জুড়ে থাকুন ।

Leave a Comment