টেকনোলজি

সিসিটিভি ক্যামেরা কেনার আগে বিষয়গুলো জানতে হবে

সিসিটিভি ক্যামেরার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে ক্যামেরা কারন এটি সিস্টেমের চোখ হিসেবে কাজ করে। দামী বা বড় সিসিটিভি ক্যামেরা কিনলেই যে ভালো হবে এমন কোনও কথা নেই। প্রথমে আপনার প্রয়োজন বা চাহিদা শনাক্ত করতে হবে। প্রয়োজনগুলো শনাক্ত করতে পারলে এর সাথে সামঞ্জস্য রেখে ক্যামেরা কেনাটা খুব সহজ হয়ে যায়। চাহিদা জানা থাকলে ক্রেতা দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে পারে এবং ভালো ক্যামেরাটিও যথাযথভাবে কিনতে পারে। তাই প্রথমেই আপনাকে সিসিটিভি ক্যামেরা সম্পর্কে যথেষ্ট পরিমাণ তথ্য জানতে হবে।

সিসিটিভি ক্যামেরা কিভাবে কাজ করে :

বাসার নিরাপত্তার জন্য ব্যবহৃত বেশিরভাগ সিসিটিভি বা ক্লোজড্‌ সার্কিট টিভি ক্যামেরাগুলো হচ্ছে সলিড-স্টেট ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস যা একটি সেন্ট্রাল রেকর্ডারের সাথে সংযুক্ত থাকে। কাজেই একটি নির্দিষ্ট অবস্থানে এটি সম্প্রচার করে এবং একারনেই একে ক্লোজড্‌ সার্কিট ক্যামেরা বলা হয়। ক্যামেরার মূল উপাদানগুলোর মধ্যে রয়েছে লেন্স, সেন্সর এবং ডিএসপি বা ডিজিটাল সিগনাল প্রসেসর। লেন্সের কাজ হচ্ছে লাইটের উপর ফোকাস করা যা সেন্সর ইমেজ হিসেবে ধারন করে এবং সেন্সর থেকে তা ডিএসপিতে স্থানান্তরিত হয়। ডিএসপি একে টিভি সিগনাল হিসেবে রূপান্তরিত করে। এরপর তার দ্বারা বা বেতারের সাহায্যে সিগনালটি সেন্ট্রাল লোকেশনে সংরক্ষণ বা পরিদর্শনের জন্য প্রেরিত হয়।

 

সিসিটিভি ক্যামেরা কেনার ক্ষেত্রে যেসব বিষয় :
কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপাদান আছে যা সিসিটিভি ক্যামেরা কেনার সময় বিবেচনা করতে হয়। এক বা একাধিক হার্ডওয়্যার কম্পোনেন্ট আছে যা না জানলেই নয়। লাইটিং এর অবস্থা যাই থাকুক না কেন, এই ক্যামেরাগুলো ২৪ ঘণ্টা আউটডোর কভারেজ দিয়ে থাকে। এগুলো দিনের বেলা একটি নির্দিষ্ট কালার ইমেজ দিয়ে থাকে এবং রাতে ইনফ্রারেড ভিউ এর জন্য সাদাকালোতে রূপান্তরিত হয়। ব্যবহারকারীর উদ্দেশ্য ও চাহিদার উপর নির্ভর করে সে কোন ধরনের ক্যামেরা ব্যবহার করবে। চাহিদাগুলো নির্ণয় করতে পারলে ক্যামেরা নির্বাচন করা খুবই সহজক্রেতার যথাসম্ভব অপটিক্যাল জুমকে ডিজিটাল জুমের উপর গুরুত্ব দেয়া উচিত। ডিজিটাল জুমের সমস্যা হচ্ছে এটি মূল ইমেজের সাথে কোনও তত্ত্ব যোগ করতে পারেনা। অপটিক্যাল জুম মূল ইমেজের সাথে নতুন তত্ত্ব যোগ করতে পারে কারন লাইট সেন্সরে পৌঁছানোর সাথে সাথে ইমেজ পরিবর্তিত হয়।

সঠিক সিসিটিভি ক্যামেরা নির্বাচন:

সঠিক ক্যামেরাটি ক্রয়ের ক্ষেত্রে প্রথমেই যা বিবেচনা করতে হবে তা হলো লেন্স। লেন্স ব্যবহারকারীকে স্পষ্ট ইমেজ প্রদান করে। দ্বিতীয়টি হচ্ছে সেন্সর। ক্রেতার ১/৩ ইঞ্চি সিসিডি সেন্সর ক্রয় করা উচিত কারন এটি প্রসেসিং এর জন্য অধিকাংশ তথ্য ডিএসপিতে প্রদান করে। শেষ ফিচারটি হচ্ছে ক্যামেরা আউটপুট রেজোলিউশান। এর উপযোগিতা প্রথম ২টি ফিচারের উপর নির্ভর করে। হার্ডওয়্যারের সামর্থ্য নির্ণয়ের পর দ্বিতীয় পর্যায়ে ক্রেতাকে নির্ধারণ করতে হবে কোন ক্যামেরাটি তার চাহিদার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। বিস্তৃত আউটডোর এরিয়া কভার করার জন্য যেমন বাড়িওয়ালা তার সম্পত্তি রক্ষার জন্য ডে/নাইট ক্যামেরা ব্যবহার করতে পারে। স্টাফদের মনিটর করার জন্য বুলেট ক্যামেরা এবং দোকান বা ব্যবসার জন্য ডোম ক্যামেরা ভালো।

 

নিচের লিস্ট টি বিবেচনা করে ক্যামেরা কিনলে আপনি ঠকবেন না।
১। আপনার বাজেট কত
২। বাড়ির ভিতরে না বাইরে ব্যবহার করবেন
৩। একটা বা দুইটা না তার বেশি ক্যামেরা দরকার
৪। মোশন সেন্সর রেকর্ডিং দরকার কিনা
৫। একটি ক্যামেরার জন্য SD কার্ড ভালো, বেশি ক্যামেরার জন্য DVR ভালো
৬। ক্যামেরাটির apps ভালো কিনা
৭। পুশ নোটিফিকেশন অ্যালার্ম আছে কিনা
৮। রাতে রেকর্ড করা যায় কিনা
৯। মোবাইল ফোন দিয়ে রেকর্ড করা যায় কিনা। লাইভ ভিউ আছে কিনা।
১০। সাউন্ড রেকর্ড করা যায় কিনা
১১। ক্যামেরার রিভিউ কি রকম
১২। রেকর্ডিং কত ডিগ্রী করা যায়
১৩। কত মেগা পিক্সেল ক্যামেরা
১৪। ক্যামেরা ফোন থেকে মুভ করা যায় কিনা
১৫। ক্যামেরা অপারেশন তাপমাত্রা কত
১৬। ক্যামেরা ওয়াটারপ্রুফ কিনা

সিসিটিভি ক্যামেরার দাম কেমনঃ
ক্যামেরা কোয়ালিটি,প্রোভাইডার ও আনুষঙ্গিক আরো অনেক সমীকরণ মিলিয়ে একটি ভালো সিসিটিভি ক্যামেরার দাম নির্ধারিত হয়। আপনি এখনি কয়েকটা সিসিটিভি ক্যামেরা প্রোভাইডার দের ওয়েবসাইট এ গিয়ে নিজেই এর দাম সম্পর্কে অনুধাবন করতে পারবেন। গুগলে Best CCTV camera price লিখে সার্চ করুন আর ১০-১২ টা ওয়েবসাইট ঘেটে দেখুন।

নিরাপত্তার কথা আজই ভাবুন ভবিষ্যতে নিরাপদ থাকুন

লিখেছেন  

সূত্র: ইন্টারনেট

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button