পৃথিবীর সবথেকে ধনী ইসলামিক দেশ

আপনি হয়তো সবসময় ইসলামিক দেশের আচার-বিচার বা তাদের আইন সম্পর্কে শুনেছেন কারণ ইসলামিক দেশের আইন অনেক সুগঠিত এবং সবল হয়ে থাকে কিন্তু আজ আমি ইসলামিক দেশের আইন সম্পর্কে নয় । পাঁচটি পৃথিবীর সবথেকে ধনী ইসলামিক দেশ সম্পর্কে বলব যারা নিজেদের পয়সা আর লাইফ স্টাইলের জন্য অনেক বেশি পরিচিত এবং বিশ্ব অর্থনীতিতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

৫। সৌদি আরব 

“পৃথিবীর সবথেকে ধনী ইসলামিক দেশ”গুলির মধ্যে পঞ্চম স্থান অধিকার করে আছে সৌদি আরব । ২০১৬ সালের হিসাব অনুযায়ী সৌদি আরবের প্রতি ব্যক্তির ২০,০২৮.৬৫ ডলার জি.ডি.পি মানে পি.পি.পি আছে । সৌদি আরবে পৃথিবীর সবথেকে বড় তেলের ভান্ডার এবং ৯৫ শতাংশ তেল রপ্তানি সৌদি আরব থেকেই হয়ে থাকে । ছয়টি আরো নূতন শহরের যোজনা সৌদি আরবের অর্থনৈতিক ব্যবস্থার উন্নতির জন্য করা হয়েছে ।

৪। ব্রনেই

’পৃথিবীর সবথেকে ধনী ইসলামিক দেশ’গুলির মধ্যে নম্বর চার আছে ব্রনেই । পৃথিবীর চতুর্থ সবথেকে ধনী মুসলিম দেশ ব্রনে । ২০১৬ সালে প্রতি ব্যক্তির জি.ডিপি ২৬,৯৩৮.৫০ ডলার পি.পি.পি । আশি বছর ধরে এই দেশের অর্থ ব্যবস্থায় তেল আর গ্যাস উৎপাদনের একটা বড় ভূমিকা রয়েছে । আর নাইট্রোজেনের ৯০ শতাংশ ব্রনে থেকেই রপ্তানি করা হয় । ব্রনে পৃথিবীর চতুর্থ সবথেকে বড় তেল উৎপাদক ।

৩। ইউনাটেড আরব অ্যামিরাটস

পৃথিবীর সবথেকে ধনী ইসলামিক দেশগুলির মধ্যে নম্বর তিনে আছে ইউনাটেড আরব অ্যামিরাটস । সংযুক্ত আরব আমিরাটসের তেল আর গ্যাস জি.ডি.পি-র প্রায় ২৫ শতাংশ যেটা ২০১৬-এর পি.পি.পি-তে ৩৭,৬২২.২১ ডলার । দেশের পেট্রোলিয়াম ও প্রাকৃতিক গ্যাস রপ্তানি দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাতে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।

২। কুয়েত

পৃথিবীর সবথেকে ধনী ইসলামিক দেশগুলির মধ্যে দ্বিতীয় নাম্বারে আছে কুয়েত । প্রায় সাড়ে চল্লিশ লক্ষ জনসংখ্যা বিশিষ্ট এই দেশ পৃথিবীর দ্বিতীয় সবথেকে ধনী মুসলিম দেশ । ২০১২ সালের হিসাব অনুযায়ী কুয়েতের প্রতি ব্যক্তির ৫১,২৬৪.০৭ ডলার জি.ডি.পি মানে পি.পি.পি আছে । কুয়েত নিজেকে ১০৪ মিলিয়ন ব্যারেল কাঁচা তেলের ভান্ডার আবিষ্কার করে ।

১। কাতার

নম্বার একে স্থান করে নিয়েছে কাতার । প্রায় পঁচিশ লক্ষ জনসংখ্যা বিশিষ্ট এই দেশ ধনী মুসলিম দেশগুলির মধ্যে সব থেকে উপরে স্থান করে নিয়েছে । এই দেশের সবথেকে বেশি পয়সা গ্যাস,তেল আর পেট্রোক্যেমিকেলসের উৎপাদন আর রপ্তানি বাড়ানোর কারণে হয়েছে । এই দেশ২০২২ সালের ফুটবল বিশ্বকাপের আয়োজন করতে চলেছে । কাতার ২০২০ সালের অলিম্পিক খেলাতেও অংশগ্রহণ করবে । এতটা ছোট দেশ হওয়া সত্বেও এই দেশ খুব দ্রুত গতিতে উন্নতির পথে এগিয়ে চলেছে ।

রহস্যময় পৃথিবীর রহস্য জানতে আমাদের সাথে জুড়ে থাকুন ।

 

Leave a Comment