বিউটি টিপসস্বাস্থ্য

কালোজিরার যত কথা

কালোজিরা।রান্নাঘরের মশলার বক্সে আমরা এটিকে পাবোই।এর রয়েছে অনেক গুনাগুন।কালোজিরাকে সর্বরোগ নিরাময় ওষুধ ও বলা হয়।ডায়বেটিকসে প্রতিরোধে এর ভুমিকা অপরিসীম।তাছাড়া উচ্চরক্তচাপ,এ্যাজমাতেও এটি খুব কার্যকরী। কেননা,এর মধ্যে যেসব প্রয়োজনীয় উপাদান রয়েছে তা শরীরে জন্য যেমন গুরুত্বপুর্ন তেমনি রোগ প্রতিরোধে সহায়ক।তাহলে জেনে নেয়া যাক,এতে কি কি উপাদান আছে।

 

কালোজিরায় কি কি উপাদান রয়েছে:

কালোজিরা যার ইংরেজি নাম Fennel.100 গ্রাম কালোজিরেতে আছে 345 ক্যালোরি।যা আপনার শরীরকে রোগ প্রতিরোধে সক্ষম করে তুলতে যথেষ্ট উপকারী। প্রোটিন 16 গ্রাম,কার্বোহাইড্রেট 52 গ্রাম,সোডিয়াম 88 মিলিগ্রাম,কোলেস্টেরল 0 গ্রাম,পটাশিয়াম 1694 মিলিগ্রাম,ডায়টিক ফাইবার 40 গ্রাম,আয়রন 105 গ্রাম,ক্যালশিয়াম 119 গ্রাম,ভিটামিন সি 35%। সুতরাং,মাত্র 100 গ্রাম কালোজিরেতে আপনি পাচ্ছেন আপনার সুস্থ থাকার একটি সহজ উপায়।

 

কালোজিরার উপকারিতা

কালোজিরার উপকারিতা অপরিসীম।নিয়মিত এটি খেলে শরীরে রোগ বাসা বাধতে পারে না।

১. ডায়াবেটিকস রোগীর জন্য কালোজিরা অব্যর্থ মহাঔষধ।কালোজিরা ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রনে খুব ই সহায়ক।প্রতিদিন সকালে চায়ের সাথে এক চা- চামচ কালোজিরা তেল মিশিয়ে খান।আপনার ডায়াবেটিকস নিয়ন্ত্রনে থাকবে।

২. ডায়েটের জন্য কালোজিরার বেশ প্রয়োজনীয়।ডায়েটের ওটসের সাথে টক দই আর কালোজিরা মিশিয়ে খেতে পারেন।বেশ উপকৃত হবেন।

৩. লেবুর রস আর কালোজির তেল মিশিয়ে ত্বকে লাগালে ত্বকের পিম্পেল এবং ব্রনের সমস্যার সমাধান হয়।

৪. কালোজিরা তেল মাথা ব্যাথায় খুব ই কার্যকরী।প্রচন্ড মাথা ব্যাথা হলে একটু কালোজিরা তেল নিয়ে কপালে ম্যাসেজ করুন।মাথা ব্যাথায় সুফল পাবেন

৫. কালোজিরাতে আছে এন্টি অক্সিডেন্ট।যা আপনার রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে।গ্যাস্টিকের সমস্যা,পেটে প্রদাহ থেকে বাচাতে কালোজিরা খান।

৬. কালোজিরা,8-10 টা নিমপাতা,10-12 টা তুলসি পাতা,এক টুকরা কাচা হলুদ একসাথে বেটে নিন।এরপর বড়ি দেবার মতো করে রোদে শুকিয়ে নিন।এরপর শুকনো হয়ে গেলে রোজ ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে এর একটা বড়ি খান।আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এটি দ্বিগুন বাড়িয়ে দেবে।

৭. রান্নায় কালোজিরে ব্যবহার করুন।যেকোনে ফোড়নে কালোজিরে খেতে পারেন।আপনার সকালে রুটির সাথে সবজি কিংবা ভাতের সাথের তরকারিতে কালোজিরে ফোড়ন খান।শরীরের জন্য এটা যেমন উপকারী খেতেও সুস্বাদু হবে।এবং আপনি নতুনত্ব পাবেন। 8.কালোজিরা নিয়মিত খেলে খোসপাচড়াসহ নানান চর্মরোগ কমে যায়।এটি নিয়মিত ব্যবহার চর্ম রোই অনেককাংশে কমে যায়।

৮. নিয়মিত কালোজিরা খেলে রক্তপরিস্কার থাকে।দুষিত রক্ত বাসা বাধতে পারে না।রক্ত সঞ্চালন ও ভালো হয়।

৯. চুলের যত্নেও কালোজিরা বেশ সহায়ক।কালোজিরা তেল,এ্যলোভেরা,জবা এবং আমলকি একটা মিশিয়ে জ্বাল দিয়ে নিন।এরপর সপ্তাহে 3-4 দিন ব্যবহার করুন।চুল পড়া রোগ হবে।চুল হবে স্বাস্থ‌্যজ্বল।

১০. কালোজিরা চোখ ভালো রাখতে খুব প্রয়োজনীয়।এটি চোখের জ্যোতি ভালো রাখে।এবং দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়।

১১. প্রসূতি মায়ের জন্য কালোজিরা খুব ই ভালো।প্রসূতি মায়ের সুস্থতা এবং নবজাতকের সুস্থতার জন্য কালোজিরে মহাঔষধ।প্রসুতি মায়ের বুকের দুধের উৎপাদনের এক মহাঔষধ বলা হয় এই কালোজিরাকে।

১২. রান্নায় কালোজিরা বাটা ব্যবহার করতে পারেন।মাছের ঝোলে কালোজিরে বাটা দিলে খেতে যেমন সুস্বাদু হবে তেমনি দেখতেও সুন্দর এবং স্বাস্থের জন্য অতি প্রয়োজনীয় হবে।

১৩. কালোজিরা শরীরে ব্যাথা কমাতে খুব ই সহায়ক।কালোজিরা তেল নিয়মিত চায়ের সাথে মিশিয়ে খেলে তা শরীরের ব্যাথা উপশমে সাহায‌্য করে।

১৪. কালোজিরা নিয়মিত সকালে খালি পেটে চিবিয়ে খেলেও তা শরীরের জন্য যথেষ্ট উপকারী।

১৫. প্রতিদিন সকালে রসুনের দুটি কোষ চিবিয়ে খেয়ে এবং সমস্ত শরীরে কালোজিরার তেল মালিশ করে সূর্যের তাপে কমপক্ষে আধাঘন্টা অবস্থান করুন। এক চা-চামচ কালোজিরার তেল সমপরিমাণ মধুসহ প্রতি সপ্তাহে ২/৩ দিন খেলে ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে থাকে।

১৬. পাইলসের সমস্যা সমাধানে নিয়মিত 1 চা চামচ মাখন,সমপরিমান তিল তেল এবং কালোজিরা একসাথে 2/3 সপ্তাহ খেতে পারেন।

১৭. হার্টের সমস্যা সমাধানেও কালোজিরা খুব কার্যকরী।1 চা চামচ কালোজিরা গুড়া রোজ দুধে মিশিয়ে খেলে আপনার হার্ট ভালো থাকবে।

১৮. বাতের ব্যথায় ও কালোজিরা গুরুত্বপূর্ন।কাচা হলুদের রসের সঙ্গে মধু আর কালোজিরা মিশিয়ে খেলে তা বাতের ব্যাথা দূর করতে সহায়ক।

১৯. হাঁপানী রোগের জন্য কালোজিরা খুব গুরুত্বপূর্ন।এরা নিয়মিত কালোজিরে খেলে এদের হাপানী রোগ থেকে মুক্তি সম্ভব।এক্ষেত্রে তারা নিয়মিত খাবারে কালোজিরা ভর্তা খেতে পারে।এতে শ্বাসকষ্ট রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব।

 

কালোজিরা ভর্তার নিয়ম:

অনেকে কালোজিরা ভর্তা নানানভাবেই করে থাকেন।প্রথমে 2/4 কোয়া রসুন কুচিয়ে নিন।এরপর দুটো শুকনামরিচ নিন।সরষের তেলে রসুন দিয়ে একটু ভাজা হয়ে গেলে এটি শুকনা মরিচ কালোজিরা আর লবন দিয়ে টেলে নিন।এরপর ঠান্ডা হয়ে গেলে ভালো করে বেটে নিন।ব্যস হয়ে গেলো কালোজিরা ভর্তা।

 

শেষ কথা

কালোজিরা যেকোনো রোগের অব্যর্থ মহাঔষধ।এটি খাওয়া শরীরে জন্য অত্যন্ত উপকারী।এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।আমাদের উচিত দৈনন্দিন খাবার তালিকা কালোজিরা রাখা।যাতে খাবারের হজম শক্তি এবং শরীরের রোগ প্রতিরোধ বৃদ্ধি পায়।এই করোনা কালীন সময়ে রোগ প্রতিরোধ বৃদ্ধি করা সুস্থ থাকার এক অন্যতম উপায়।

সুতরাং ভালো থাকুন,সুস্থ থাকুন।

 

লিখেছেন   : Sristy Saha

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button